Logo
logo

গল্প / কাহিনী

অণুগল্প - গোপনে প্রেম

গোপন প্রেম তো সেই ছোট্ট বেলা থেকে এসেই গেছে প্রতিটি ছেলে মেয়ের জীবনে। প্রথমে বলি ছোট্ট মেয়েটির কথা, ঠিক মতো দাঁড়াতে পারে না সে , গামছা নিয়ে টানা টানি করে মাথাতে ঘোমটা টানার জন্য। তারপর আর একটু বড় হতেই মা কাকীমার উঁচু হিলের স্যান্ডেল এ প্রেম। ৩ ইঞ্ছি পা এর পাতা নিয়ে ৮ ইঞ্ছি পায়ের পাতার মাপে উঁচু হিলের স্যান্ডেল পায়ে ঢুকিয়ে খট খট করে চলা আর যেই কারোর নজরে পড়লো ব্যপার টা মুখ ঢেকে লজ্জায় একসার হওয়া। ধীরে ধীরে সময়ের সাথে সাথে প্রেম বেড়েই চললো গুটি গুটি পায়ে মা কাকীমার লিপস্টিক, কাজল, নখপালিশ গুলো লন্ড ভন্ড করে। এসব কাণ্ড ঘটিয়ে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে নিজেই দেখতে দেখতে মেয়েটি যৌবনের চৌকাঠে পা দেয়।

গ্রীষ্মের ছুটি তে প্রতিবছরের মতো লম্বা ছুটিতে মামা বাড়ী গেলো কাজল। সেখানে দিদা আর ছোটো মামা থাকেন।ছুটিতে গেলেও বইপত্র সঙ্গে নিয়ে যেতে হতো কারণ ,দশম শ্রেণীর ছাত্রী কাজল। সামনে ফাইনাল পরীক্ষা ছুটির পড়াশুনা গুলো ঝালিয়ে না নিলে অনেক টা পিছিয়ে যেতে হবে পড়াশুনা তে। ২/৩ দিন কাটানোর পর কাজলের ছোটো মামা বললেন পাশের বাড়ীর অরুণ অঙ্কে খুব ভালো জ্ঞান রাখে। ম্যাথমেটিক্স এ অনার্স নিয়ে ২য় বর্ষের ছাত্র। অরুণ কে না হয় বলবো তোকে একটু অঙ্কটা সময় করে দেখিয়ে দেবে।

অরুণ ছোটো মামার কথা মতো অঙ্ক শেখাতে আসতো। কাজলের প্রথমদিকে প্রচন্ড বিরক্ত লাগতো। একমনে অঙ্ক বুঝিয়ে পরের দিনের জন্য অঙ্ক অভ্যেস করতে বলে মুখ নীচু করে বেড়িয়ে যেতেন। কাজলের ঐ গম্ভীর মাষ্টার মশাই এর গম্ভীরতা মোটেই ভালো লাগতো না। আস্তে আস্তে ছুটি শেষ হতে চলেছে, কাজল ভাবলো যাক গে নিঃশ্বাস ছেড়ে বাঁচা যাবে !!

কাজল অপেক্ষায় আছে অরুণ দার। কিন্তু না তিনি তো আসলেন না আজ। কাজলের মনে একটা অজানা অস্থিরতা সৃষ্টি হয়। কথায় কথায় সে ছোটো মামা কে বললো, দেখো না মামু অরুণ দা র কি কোনও দায়িত্ব জ্ঞান নেই, বেশ কটা অঙ্ক যেটা ঠিকমত বুঝতে পারছি না, ভেবেছিলাম অরুণ দা পরের দিন আসলে বুঝে নেবো কিন্তু তার তো কোন পাত্তাই নেই।

মামু মুচকি হেসে বললেন, যাক গে কটা দিন না হয় আরাম করে নে। বাড়ী ফিরে তো সেই আবার স্কুল পড়াশুনা আরম্ভ হয়ে যাবে। মামুর সামনে একটু হেসে কাজল সেখান থেকে তখনকার মত চলে গেল। কাজলের উদাসীনতা এবার কিন্তু মামুর চোখ এড়াতে পারলো না। কাজল কে মামু জিজ্ঞেস করলেন কি রে কাজল শরীর ভালো আছে তো মুখ টা এরকম ফ্যাকাসে দেখাচ্ছে কেন? কাজল সঙ্গে সঙ্গে বললো, না মামু আমি তো ঠিকই আছি।

পরের দিন মামু মারফৎ কাজল জানতে পারলো অরুন দা ভাইরাল ফিভার এ আক্রান্ত। এতো গম্ভীর মানুষ টি র জন্য কাজলের মনের মধ্যে উথাল পাথাল কেন সেটা কাজল নিজেই জানে না। কাজলের বাড়ী ফিরে যাওয়ার দুই দিন আর বাকি। মামু কে কাজল বললো, একবার অরুণ দা কে দেখে আসি আর ধন্যবাদ জানিয়ে আসি। মামু সঙ্গে সঙ্গে বললেন, ঠিক বলেছিস কাল না হয় যাওয়া যাক।

পরের দিন বিকেলে মামু একটি ফলের প্যাকেট নিয়ে কাজল কে নিয়ে অরুণের বাড়ী গেলেন। অরুণ কে দেখেই বোঝা যাচ্ছে প্রচণ্ড জ্বর, মুখ চোখ শুকনো, চুল উস্কো খুস্কো, গায়ে চাদর মুড়ি দিয়ে বিছানায় শুয়ে আছে। পাশের সাইড টেবিলে ফল গুলো রেখে মামু বললেন, কি রে অরুণ কেমন আছিস? দুদিনেই মুখ চোখ শুকিয়ে কি অবস্থা তোর? ডাক্তার দেখিয়েছিস, ওষুধ খেয়েছিস এক নিঃশ্বাসে মামু কথা গুলো বললেন। অরুন দা মাথা নেড়ে বললেন, হ্যাঁ। আমি চুপচাপ কথা গুলো শুনছিলাম। কিছুক্ষন নানা বিষয়ে কথাবার্তা হওয়ার পর মামু বললেন, অরুণ এবার তাহলে ওঠা যাক কি বল ( আমার দিকে চেয়ে)। সঙ্গে সঙ্গে উঠে দাঁড়িয়ে পরলাম। মনে মনে হচ্ছে মামুর এত তাড়া কিসের? আর একটু থাকলেই হয়। মামুর সাথে ফিরে এলাম ঠিক কিন্তু সেই উস্কো খুস্কো চুল আর শুকনো মুখ টি বারবার চোখের সামনে ভেসে উঠলো।

ছুটি শেষ হওয়ার দু দিন আগে বাড়ী ফিরলাম। দুদিন পর স্কুল খুললো। আমি নিয়ম মাফিক স্কুল গেলাম। একমাস পর ফাইনাল পরীক্ষা হোলো। পরীক্ষায় বসলাম, রেজাল্ট বের হলো। প্রোগ্রেস রিপোর্ট ( মার্কশিট) হাতে পেতেই দেখি অঙ্কে হাইয়েস্ট নাম্বার। খুশীতে চোখে জল নেমে আসলেও কোনো রকমে চোখের জল কে আটকে বললাম, অরুণ দা, "ইউ আর গ্রেট"। মন প্রাণ দিয়ে চিৎকার করে বলতে ইচ্ছে হলো,"অরুণ দা আই লাভ ইউ"।

বেশ কিছুদিন পর মামু আমাদের বাড়ী এলেন। কিছুক্ষণ পর ব্যাগ থেকে একটি রঙিন কাগজে মোড়ানো একটি বই দিয়ে বললেন, নে মনে হচ্ছে অঙ্কের ভালো কোনো গাইড বই হবে, অরুণ তোর জন্য দিয়েছে। বইটি নিয়ে কাজল সোজা চিলেকোঠা ঘরে গিয়ে রঙিন কাগজ ছিঁড়ে ফেলে বইটির পাতা ওল্টাতে ই একটি ভাঁজ করা কাগজ মেঝে তে পড়ে গেলো। কাজল সঙ্গে সঙ্গে উঠিয়ে কাগজ টি হাতে নিতেই খুব পারফিউম এর মিষ্টি সুগন্ধ ভেসে উঠলো। কাজল কাগজের ভাঁজ টি খুলেই পড়তে শুরু করলো। লেখা ছিল, খুব ভালোবাসি তোমায় অপেক্ষা কোরো।

খোলা ছাদের নিচে দুই হাত বাড়িয়ে গান গাইলো, "আজ মন চেয়েছে আমি হারিয়ে যাবো.. হারিয়ে যাবো আমি তোমার সাথে".....

Contact US

Tel: 9903329047 / 8697419047
Email: sreemotirdarbar@gmail.com